কুমারীত্বের বিনিময়েও আইফোন চাই!

কাল রাতে বিডিনিউজে নিচের নিউজটা লেখার সময় ভাবছিলাম, মেয়েদের তো ভালোই। বাণিজ্য করার মতো কিছু আছে। আমরা ছেলেরাই হলাম হতভাগা। :(( :(( :(( :(( :(( :P :P :P

কুমারীত্বের বিনিময়েও আইফোন চাই

অবশ্য একেবারে হতভাগা নই। কিডনি তো আছে। :D চাইনিজ ঐ ছেলে কিডনি বিক্রি করে আইপ্যাড ২ ছাড়াও ল্যাপটপ (সম্ভবত ম্যাকবুক) কিনেছিল। আইডিয়া খারাপ না, তাই না? জীবনে আছে কী! /:) /:) <img src="http://cdn.somewhereinblog.net/smileys/emot-slices_49.gif&quot; alt=":- মৃত্যু তো আসবেই দু’দিন আগে বা পরে। তার চেয়ে শখের জিনিসগুলো ব্যবহার করে সাধ পূরণ করে নেয়াই তো মনে হয় ভালো। :D:D

দ্রষ্টব্যঃ ছবির মেয়েটা সেই চায়নিজ মেয়ে নয়। :D:P

মোগাম্বো…খুশ হুয়া!

মোগ্যাম্বোর মিস্টার ইন্ডিয়ার পেছনে টম অ্যান্ড জেরির মতো ছোটাছুটি আর মিস্টার ইন্ডিয়ার স্রেফ লাপাত্তা হয়ে যাওয়ার ঘটনা কিছুটা হলেও যেন ওবামা ও যুক্তরাষ্ট্রের ঘটনার সঙ্গে মিলে যায়। মিস্টার ইন্ডিয়ার ছিল স্রেফ অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার শক্তি, আর বিন লাদেনের ছিল দৃশ্যমান থেকেও চোখের আড়ালে থাকার ক্ষমতা। যদিও অবশেষে এসে ধরা খেতেই হলো তাকেও।

পুরনো দিনের হিন্দি ছবি দেখেননি এমন মানুষ হয়তো একটু কমই পাওয়া যাবে। বিশেষ করে মিস্টার ইন্ডিয়া চলচ্চিত্রটি না দেখলেও এর নাম নিশ্চয়ই শুনে থাকবেন অনেকেই। অমরেশপুরি ও অনিল কাপুর সঙ্গে শ্রী দেবীর কালজয়ী এক ছবি এটি। সম্প্রতি জানা গেছে, মিস্টার ইন্ডিয়া টু আসছে। তবে আমরা সেই বিষয়ে আলোচনা করবো না। মিস্টার ইন্ডিয়া ছবিতে ‘মোগ্যাম্বো খুশ হুয়া’ সংলাপটি ছিল সেসময়ের অন্যতম হিট। অনেকের মুখে মুখেই কথাটা শোনা যেত। কেবল ডায়ালগের অর্থ দেখে নয়, অমরেশপুরির মন উজাড় করা হাসির সঙ্গে কথাটা এতোই মানাতো যেন সংলাপটা কেবল তাকেই মানাবে, আর কাউকে নয়।

Continue reading

ডে অফ ডিপার্চার মার্চে অংশগ্রহণকারীদের জন্য শুভ কামনা

প্রথম প্রকাশঃ Good Luck for the Day of Departure

এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে চলে মিশরীয়দের বিক্ষোভ এবার আরো ভয়াবহ রূপ নিতে যাচ্ছে বলেই আপাতঃদৃষ্টিতে মনে হয়। শুক্রবারের মধ্যে ক্ষমতা ছাড়ার আলটিমেটাম দেয়া হলেও নির্লজ্জ প্রেসিডেন্ট মোবারক সস্থানে বহাল রয়েছেন। এ জন্য শুক্রবারকে মোবারকবিরোধী বিক্ষোভকারীরা ডে অফ ডিপার্চার বলে অভিহিত করে তারা দলে দলে প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেস বা প্রেসিডেন্টের প্রাসাদের দিকে এগোতে যাচ্ছে।

জানা গেছে, প্রায় বিশ লক্ষ মানুষ এই মার্চে অংশগ্রহণ করতে যাচ্ছে। প্রেসিডেন্সিয়াল প্যালেস তাহরির স্কয়ার থেকে ১০-১৫ কিলোমিটারের দূরত্ব। সেখানে গিয়ে বিক্ষোভকারীরা কী করবে তা এখনো স্পষ্টভাবে জানা যায়নি। এদিকে তাদের এগিয়ে যাওয়া সেনাবাহিনীও কোনোরূপ বাধা দেবে বলে মনে হচ্ছে না।

এদিকে এই মার্চের অনুরূপ হিসেবে নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কয়ারেও শুক্রবার বিকাল ৩.৩০-এ ডে অফ ডিপার্চার নামে র‌্যালি অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

তাহরির স্কয়ারে জীবনযাত্রা ক্ষান্ত দিয়ে যারা দিনরাত এক করে মোবারকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আছেন, তাদের স্বাগত জানাই। স্বাগত জানাই মিশরের সেনাবাহিনীকে, যারা জনগণকে সঙ্গ দিচ্ছেন। ধিক্কার জানাই নির্লজ্জ মোবারকের, যে প্রথমে সোশাল মিডিয়া, পরে ইন্টারনেট বন্ধ করে মানুষের মুখে তালা মারার ব্যর্থ চেষ্টা চালিয়েই ক্ষান্ত হয়নি, বরং এবার নিজের পালিত একদল মানুষরূপী কুকুরকে বিক্ষোভকারীদের মাঝে পাঠিয়ে তাহরির স্কয়ারকে যুদ্ধক্ষেত্র বানিয়েছে আর নিজে বসে দেশের দোহাই দিয়ে বলছে এখনই ক্ষমতা ছাড়লে মিশরের অবস্থার আরও অবনতি হবে।

Continue reading