মোজিলা সামিট ২০১৩: ওপেন ইন্টারনেটের লক্ষ্যে মোজিলার অবস্থান ও ভবিষ্যতের ফায়ারফক্স (২য় দিন)

এই পোস্টটি তিনটি ধারাবাহিক পোস্টের দ্বিতীয় পর্ব। যুক্তরাষ্ট্রের সান্তা ক্লারায় চলমান মোজিলা সামিট ২০১৩ থেকে বিভিন্ন হাইলাইটগুলো নিয়ে আজকের এই পোস্ট। সিরিজের প্রথম পোস্টটি দেখুন এখানে: মোজিলা সামিট ২০১৩: মোজিলা ও ফায়ারফক্স ওএস-এর ভবিষ্যত (১ম দিন)

মজিলা ম্যাগাজিন

মোজিলা সামিট ২০১৩-এর দ্বিতীয় দিনের শুরুর প্রেজেন্টেশনগুলো ছিল মোজিলা কীভাবে একটি উন্মুক্ত ইন্টারনেটের লক্ষ্যে এগোচ্ছে এবং ফায়ারফক্স ব্রাউজার ও ফায়ারফক্স ওএস এর জন্য ভবিষ্যতে কী অপেক্ষা করছে। যেমনটা উপরের ছবিতে দেখতে পাচ্ছেন, মোজিলার চোখে এই বিষয়গুলো ওপেন ইন্টারনেটের সাইন বা চিহ্ন। তবে ওপেন ইন্টারনেটের আগে মোজিলা দেখছে আসলে কত শতাংশ মানুষ ইন্টারনেটের সঙ্গে পরিচিত বা ইন্টারনেটকে তাদের জীবনে উন্নয়ন আনার জন্য কাজ করছে। Continue reading

মোজিলা সামিট ২০১৩: মোজিলা ও ফায়ারফক্স ওএস-এর ভবিষ্যত (১ম দিন)

মোজিলা সামিট ২০১৩

মোজিলা সামিট ২০১৩

বেশ কয়েক মাসের ব্যাপক প্রস্তুতির পর অবশেষে বিশ্বব্যাপী মোজিলিয়ানদের নিয়ে তিনটি শহরজুড়ে পর্দা উঠেছে বহুল-আলোচিত মোজিলা সামিট ২০১৩-এর। বেলজিয়ামের ব্রাসেলস, কানাডার টরোন্টো এবং যুক্তরাষ্ট্রের সান্তা ক্লারায় ৪ঠা অক্টোবর স্থানীয় সময় সকাল ৯টায় আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধনী ঘোষণা দেয়া হয় মোজিলা সামিট ২০১৩-এর। সুবিশাল এই তিনদিনব্যাপী আয়োজনের উদ্বোধনীতেই মোজিলা ও মোজিলিয়ানদের ভবিষ্যত সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দেয়া হয়েছে।

মোজিলা বাংলাদেশ টিম এবারের মোজিলা সামিট ২০১৩-এর সান্তা ক্লারা ভেনুতে অংশ নেয়ার সুযোগ লাভ করেছে। আর সেই টিমের হয়েই মোজিলা বাংলাদেশের অন্যান্য অবদানকারী এবং আগ্রহীদের মোজিলা সামিটের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো হাইলাইট করার জন্যই আজকের এই পোস্ট।

হাইলাইটগুলো প্রকাশিত হচ্ছে দি মজিলা ম্যাগাজিন-এ।

Continue reading

ঠিক এক বছর আগে এইদিন শুরু হয়েছিল কলেজ লাইফ

আজ থেকে ঠিক এক বছর আগের এই দিনে কলেজে ভর্তির জন্য গিয়েছিলাম। তারচেয়ে মজার ব্যাপার হলো, সেদিনের আবহাওয়া ঠিক আজকের মতোই ছিল। আজ সকাল থেকেই যেমন টুপটাপ বৃষ্টি পড়ছে, সেদিনই ঠিক একইভাবে সকালে টুপটাপ বৃষ্টি পড়ছিল। তবে সেদিন বের হওয়ার সময় ইচ্ছে করেই ছাতা নেইনি। কারণ, তখন আকাশের অবস্থা দেখে মনে হচ্ছিল আর বৃষ্টি আসবে না। ঠিক আজ সকালে যেমন মনে হয়েছে।

গত বছরের এই দিন বের হয়ে বেশ বিপদে পড়েছিলাম। কোনো বাসই পাচ্ছিলাম না। ভাবছিলাম ভর্তির দিন, দেরি হলে আবার কি না কি সমস্যায় পড়তে হয়। সিএনজি নেব ভাবছি এমন সময় ভাগ্যক্রমে একটা বাস পেয়ে যাই। তৃতীয়বারের মতো যাই কলেজে। প্রথমবার গিয়েছিলাম ফরম আনতে। দ্বিতীয়বার রেজাল্ট জানতে। আর সেবার ভর্তি হতে। তবে কলেজে ভর্তি হতে যে এতো কাঠ-খড় পোড়ানো লাগবে সেটা কে জানতো।

বাস থেকে মহাখালী ফ্লাইওভারের কাছে নামলাম। তখন একেবারে কাকভেজা বা বিড়াল-কুকুর ভেজা বৃষ্টি যেটাই বলেন হচ্ছিল। ফ্লাইওভার থেকে কলেজে পৌঁছতে পৌঁছতে ভিজে চুপসে গেলাম। শার্ট-প্যান্ট দিয়ে টপটপ করে পানি পড়ছিল। কলেজে পৌঁছে শাহীন হলে ঢুকেই পড়লাম আরেক বিপদে। এতোগুলো এসির মধ্যে মনে হলো যেন শীতকালে ডিপ ফ্রিজে ঢুকে পড়েছি। অবশেষে কলেজে ঢুকতে পারলাম প্রথমবারের মতো। Continue reading

বিশালতার মাঝে একদিন – ২

প্রথম পর্বের পর

সেইন্ট মার্টিনে পা রেখে অদ্ভূত একটা অনুভূতি হওয়ার কথা ছিল। কোনো এক আজগুবি কারণে তেমন কিছুই হলো না। এতোদিন সেইন্ট মার্টিন নিয়ে মনে মনে যে চিত্র এঁকেছি, বাস্তবের সেইন্ট মার্টিন যেন সেই চিত্রের সঙ্গে খাপ খায় না। দূর থেকে সেইন্ট মার্টিন দেখে প্রথমেই যেই জিনিসটা বেমানান লাগলো, সেটা হলো মোবাইল কোম্পানির একটা টাওয়ার। অবশ্যই এই দ্বীপে প্রযুক্তির ছোঁয়া রয়েছে এবং তার প্রয়োজনও রয়েছে। কিন্তু একেবারে সামনে থেকেই এই টাওয়ার দেখতে পাওয়ায় সেইন্ট মার্টিনের পরিবেশের সেই প্রাকৃতিক ছোঁয়া পাবো ভেবেছিলাম, তা হারিয়ে গেল।

বাস্তবেও তাই হয়েছিল। সেইন্ট মার্টিন বেশ সুন্দর একটি জায়গা। সত্যিই অনেক সুন্দর। কিন্তু ততোটা সুন্দর নয় যতোটা আপনি মনে মনে ভাবছেন।

সেইন্ট মার্টিনেও রয়েছে লোকালয়। প্রথম দৃষ্টিতে ছোট একটি গ্রামের মতো মনে হবে এটি। এখানকার স্থানীয়দেরও বেশ দেখা যায়। তাদের বাড়িঘরও অনেকটা গ্রাম্য বাড়িঘরের মতোই। তাই জাহাজ থেকে নেমে হোটেল আর বিভিন্ন দোকানের ছোটখাটো বাজার পার হয়ে যখন দ্বীপের মূল সৈকতের দিকে যাচ্ছিলাম, তখন রাস্তার দু’পাশের দৃশ্য দেখে একটা গ্রাম বলাকেই পারফেক্ট মনে হচ্ছিল।

মূল সৈকতে যাবার আগে অব্শ্য হোটেল থেকে দুপুরের খাবার খেয়ে নিয়েছিলাম। সকাল ৭টায় রওনা হয়ে সেইন্ট  মার্টিন পৌঁছেছি দুপুর তিনটেয়। খিদে তো লাগবেই। খাবার বলতে সেখানে সামুদ্রিক মাছ, মুরগি, সবজি ও ডাল ছিল। বলা বাহুল্য, এর আগের তিন কক্সবাজারের সৈকতে রূপচাঁদা মাছ নিয়েছিলাম। খুব একটা ভালো লাগেনি। তাই সেইন্ট মার্টিনের ভাজা রূপচাঁদার মনকাড়া ঘ্রাণ উপেক্ষা করে সবজি, মুরগি আর ডাল দিয়েই লাঞ্চ সারলাম। পরে অবশ্য জেনেছি, সেইন্ট মার্টিনে গিয়ে ভাজা রূপচাঁদা মাছ না খেলে যাওয়াটাই বৃথা! 😥

Continue reading

বিশালতার মাঝে একদিন-1

রাত করে ঘুমিয়েছি। তাই নিজে থেকে ঘুম ভাঙছিল না। অবশ্য আমি সন্ধ্যায় ঘুমিয়ে পড়লেও নিজ থেকে কখনোই আমার ঘুম ভাঙে না। 😉 তবে সেদিন একটু বেশিই টায়ার্ড থাকায় আম্মুর দশ-বারোবার ডাকার পরও ঘুম ভাঙেনি। পরে আমার বিরুদ্ধে মোটামুটি একটা যুদ্ধ ঘোষণা করা হলো। লক্ষ্য, আমাকে ঘুম থেকে উঠানো। অবশ্য যুদ্ধের প্রথম আক্রমণেই আমি হেরে গেলাম। যাই হোক, ঘুম থেকে উঠা মাত্রই আফসোস করা শুরু করলাম আরেকটু আগে কেন উঠলাম না। ঘড়িতে তখন প্রায় ছ’টার কাছাকাছি। সাতটার মধ্যে মোহাম্মদী গেস্ট হাউজের সামনে থাকতেই হবে যে কোনো উপায়ে।

তড়িঘড়ি করে কোনোরকমে হাত-মুখ ধুয়ে তৈরি হয়ে নিলাম। আম্মু-আব্বু, আপু আর মামা-মামি আগেই তৈরি হয়েছিল। অবশ্য আমার তৈরি হওয়ার জন্য কেউ বসে থাকেনি। সবাই মেকআপে ব্যস্ত। মনে হয় আরো দু’চার ঘণ্টা সময় থাকলে আরো দু’চার ঘণ্টাই টানা মেকআপ চলতো। 😐

যাই হোক, সাতটা বাজার দশ মিনিট আগে বের হলাম আমরা সবাই। ফ্ল্যাট থেকে মোহাম্মদী গেস্ট হাউজ পাঁচ মিনিটের পথ। সঙ্গে একটি না দু’টি ব্যাগে সারাদিনের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র। গেস্ট হাউজের সামনে এসে দেখলাম বাস অনেক আগেই চলে এসেছে। কিন্তু দেরি করার ফল হলো সবার পেছনের সিট! ধুর! মেজাজটাই খারাপ হয়ে গেল।

যাই হোক, বাসে উঠার পরও প্রায় 30 মিনিট পর বাস ছাড়লো। পাংচুয়ালিটি বা সময়ানুবর্তিতা জিনিসটা বাংলাদেশে একেবারেই নেই। আর আমি মনে করি যাদের মাঝে আছে তাদের উচিৎ ‘দেশের’ সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার উদ্দেশ্যে সময়ানুবর্তিতা ছেড়ে দেয়া। কারণ আমি নিজেই বহুবার এমন বিভিন্ন প্রোগ্রাম ইত্যাদিতে সময়মতো গিয়ে দেখি বেশি আগে চলে গেছি। 😐 যেমন, জাতীয় প্রেসক্লাবে একদিন সকালে 9টায় একটা প্রোগ্রাম হওয়ার কথা ছিল। বারবার বলে দেয়া হয়েছে সময় যেন ঠিক থাকে। আমি 8.45মিনিটে গিয়ে দেখি কারো কোনো খবরই নেই। সেই অনুষ্ঠান শুরু হয় 10.45-এর দিকে।

যাই হোক, বাস ছাড়ার পর বেশ ভালো লাগলো। সকালের দৃশ্য এমনিতেই খুব সুন্দর। তার উপর ঘন কুয়াশা পড়েছে। ড্রাইভার কীভাবে গাড়ি চালাচ্ছিল সেটাই চিন্তার বিষয় ছিল। আঁকাবাঁকা রাস্তা পেরিয়ে পাহাড়-পর্বতের মধ্য দিয়ে ছুটে চলছিল আমাদের বাস। এর মধ্যে নাস্তা দেয়া হয়, তবে কারোরই তেমন খিদে না থাকায় সবাই নাস্তা রেখে দেই।

দারুণ ও মনে রাখার মতো প্রচুর দৃশ্য দেখার পর অবশেষে 11.30 থেকে 12.00 টার মধ্যে কোনো এক সময় আমাদের বাস গন্তব্যে পৌঁছলো। বাস থেকে নামলাম। সেখানে উঠতে হবে আরেক যানে। সেটার পাস ছিল আমাদের কাছে। পাস দেখিয়ে টিকেট নিলাম। তারপর রোমাঞ্চকর এক যাত্রার উদ্দেশ্যে রওনা হলাম রোমাঞ্চকর এক ব্রিজের উপর দিয়ে।

সবার মুখে জাহাজ-জাহাজ শুনলেও নিজ চোখে দেখে সাধারণ একটা লঞ্চই মনে হলো, যদিও এগুলোর কাজ বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। যাই হোক, জাহাজে উঠে পড়লাম আরেক বিপদে। সিট নেই। এজেন্সি থেকে সিটের কথা বলা হলেও এখানে এসে দেখলাম ডেকের উপর কতগুলো প্লাস্টিকের চেয়ার ছাড়া আর কোনো সিট নেই। ভেতরে বসার জায়গা দেখলেও সেখানে কাউকে ঢুকতে দিতে দেখলাম না। ভয়াবহ রোদে গা পুড়ে যেতে লাগলো। কিন্তু কিছু করার ছিল না। ডেকের ছায়ার সাইডটা লোকে পরিপূর্ণ। এখনই যদি রোদেই বসা না যায়, তাহলে পরে আর বসাই যাবে না। তাই কোনোরকমে সবার জন্য চেয়্যার রাখা হলো। পরে অবশ্য বুঝেছিলাম সিটের দরকার পড়ে না। জাহাজ চলতে শুরু করলে মানুষ কেউ ভেতরে থাকে না। সবাই বাইরে চলে এসে ঘোরাঘুরি করে। যত রোদই হোক, তখন ঠান্ডা বাতাস লাগতে থাকে।

Continue reading

বনসবাই কমলা (a.k.a. চায়নিজ কমলা)

বাজারে এসেছে বনসাই ওরফে চাইনিজ কমলা। :-/ :-/ অর্ধবৃদ্ধাঙুলির সমান (প্রায় ;) ) ছোট আকৃতির এই কমলাগুলো বাজারে এসেই জয় করে নিয়েছে ফলখোরদের মন। B-)B-) তবে এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে দেশি কমলার উপর। চাইনিজ কমলার মন ভোলানো স্বাদ আর ভূবন ভোলানো ঘ্রাণ দেশি কমলার মার্কেট শেয়ার কমিয়ে দিয়েছে। X( X( X( X( X( X( ক্রেতারা জানিয়েছেন, সুন্দর সুন্দর ব্যাগে করে বিক্রি করা ডজনখানেক কমলার মধ্যে কোনোটাই পঁচা বা নষ্ট পাওয়া যায় না। এছাড়াও ছোট মরিচে ঝাল বেশি প্রবাদটির একটি উত্তম দৃষ্টান্তও দেখা যায় চাইনিজ কমলায়। কেননা, ছোট হলেও এগুলো “মিষ্টি বেশি”। :P :P :P :P

আমি খাচ্ছি। !:#P !:#P আপনি খেয়েছেন কি? :-B :-B

মোবাইল দিয়ে মেঘলা আকাশের ছবি তুললাম

ঘূর্ণিঝড়ের দেশ বাংলাদেশ। উপকূলীয় অঞ্চলে কিছুদিন পরপরই কোনও না কোনও ঘূর্ণিঝড়ের আগমনী বার্তা শোনা যায়। বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে সেখানকার জনজীবন। এর খুবই স্বল্প প্রভাব পড়ে রাজধানী ঢাকাতেও। প্রচণ্ড ঝড়ের তাণ্ডব কিছুটা হলেও টের পাওয়া গিয়েছিল ঢাকায় বসে। দু’দিনের অসহনীয় গরমের পর হঠাৎ করেই আকাশ মেঘলা হয়ে শীতল বাতাস বয়ে চলাটা নিঃসন্দেহে স্বস্তির। অবশ্য বাংলাদেশে বৃষ্টি হলে স্বস্তি বলে কিছু নেই। রাস্তাঘাট হাঁটুপানি আর বিরক্তিকর কাদায় পরিপূর্ণ হয়ে যায়। ফলে বৃষ্টির প্রত্যাশা খুব কম মানুষই করেন।

আমার বাসার আঙ্গিনা থেকে তোলা কিছুদিন আগের মেঘলা আকাশের দুটি ছবি। ছবি তোলা হয়েছে নোকিয়া ৫১৩০ এক্সপ্রেস মিউজিকের ২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ব্যবহার করে। রেজ্যুলেশন মিডিয়াম।

ছবি তোলার সময় রেজ্যুলেশন হাই করে নিতে মনে ছিল না। ছবি কেমন হলো জানাতে ভুলবেন না যেন।