অ্যান্ড্রয়েড কথন হ্যাক ও এ নিয়ে আমার কিছু কথা

অ্যান্ড্রয়েড কথনঅ্যান্ড্রয়েড কথনের সূচনা নিয়ে আগেই একবার লিখেছিলাম। আজ সন্ধ্যায় সাইটটি হ্যাক হয়ে যাবার পর মনে হলো পাঠকদের উদ্দেশ্যে আমার কিছু লেখা উচিৎ। এছাড়াও ব্যাকআপ ফাইল আপলোড হতে যে সময় নিচ্ছে ততক্ষণে ক্ষোভ-দুঃখ ঝাড়ার মতো একটাই উপায় আছে আমার কাছে, লেখা।

সূচনা

অ্যান্ড্রয়েড কথনের যাত্রা শুরু হয় একরকম হঠাৎ করেই। আমার প্রথম অ্যান্ড্রয়েড কেনার প্রায় কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই মনে হলো অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে ডেডিকেটেড কোনো সাইট থাকা প্রয়োজন। ইতোমধ্যেই অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে বাংলা ব্লগোস্ফিয়ারে অনেক লেখা আছে, কিন্তু ডেডিকেটেড কোনো সাইট নেই।

এরচেয়েও বড় কারণ ছিল, লেখালেখি বা ব্লগিং-এর প্রতি আমার একটা নেশা আছে। অ্যান্ড্রয়েড হাতে পাবার পরই মনে হয়েছে এটা নিয়ে অনেক লেখালেখি করা যাবে। আর লেখক/ব্লগার মাত্রই জানেন যে, সবাই এই আশা করে যে তার লেখা মানুষ পড়বে।

যাই হোক, অনেকটা চুপিসারেই অ্যান্ড্রয়েড কথনের যাত্রা শুরু হয়। ফেসবুকে কেবল আমার বন্ধুতালিকায় থাকা ভাইয়ারাই প্রথমে সাইটটি দেখেন ও এগিয়ে যেতে উৎসাহ দেন। ফেসবুকের মাধ্যমেই মূলত অ্যান্ড্রয়েড কথন মাত্র ৩ মাসে দেড় লাখেরও বেশি পেজভিউ পেতে সক্ষম হয়। বর্তমানেও অ্যান্ড্রয়েড কথনের প্রধান দুই ট্রাফিক সোর্স হলো ফেসবুক আর গুগল।

সময় পেরোতে থাকে। আমিও বিপুল উদ্যমে লিখতে থাকি। কিছু কিছু ভাইয়া পরামর্শ দেন বাংলার পাশাপাশি ইংরেজিতেও লেখার। এতে করে অ্যাডসেন্স, অ্যাফিলিয়েট ইত্যাদি মাধ্যম থেকে আয়-রোজগার করা যাবে। ইংরেজিতে লিখতে আমার কোনো বাধা নেই। কিন্তু লেখার চেয়ে মার্কেটিং, এসইও ইত্যাদি কাজে বেশি সময় কাটাতে হবে। এছাড়াও ইংরেজি সাইট দাঁড় করানোও বেশ কঠিন। অন্যদিকে অ্যান্ড্রয়েড কথন মোটামুটি পরিচিতি পেয়ে গেছে। মানুষ নিয়মিত অ্যান্ড্রয়েড কথন পড়ছেন। তৈরি কমিউনিটি ছেড়ে অন্যদিকে যেতে সায় দিচ্ছিল না মন। তাছাড়া আমার সামনে পরীক্ষা রেখে দু’টো সাইট চালানোও সম্ভব না।

এখানে বলে নেয়া ভালো, অ্যান্ড্রয়েড নিয়ে আমার ধারণা একেবারেই মোটামুটি লেভেলের। আমাদের ফেসবুক গ্রুপ আর পেজে আমার চেয়ে অনেক এক্সপার্ট আছেন যাদের কাছ থেকে পাঠকরা হয়তো ইতোমধ্যেই অনেক সাহায্য পেয়েছেন। শিশির ভাই, রাহাত, তাহমিদ ভাই, নাহিদ ভাই, সাকিবুল ইসলাম ইত্যাদি অনেকেই আমাদের গ্রুপে সাহায্য দিচ্ছেন। যাদের সম্ভব হয়েছে আমিও সাহায্য করেছি। এভাবেই অ্যান্ড্রয়েড কথনকে ঘিরে কমিউনিটি গড়ে উঠছে।

হ্যাক

কোনো সাইট জনপ্রিয় হলে তখনই তা হ্যাক হওয়ার সম্ভাবনা দেখা যেতে থাকে। হ্যাকারদের উদ্দেশ্য বোঝা মুশকিল। তারা বেশিরভাগই নিজেদের দক্ষতা দেখানোর জন্য সাইট হ্যাক করে থাকেন। অ্যান্ড্রয়েড কথনের হ্যাকারও হয়তো সে জাতীয়ই কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে হ্যাক করেছেন।

হ্যাকারকে নিয়ে আমার দু’টো কথা আছে। প্রথমটা হচ্ছে, তিনি অভিযোগ করেছেন আমি ভাব নেই। আমি নিশ্চিত তার সঙ্গে আমার কখনো দেখা হয়নি। দেখা হলে হয়তো তিনি এমনটা বলতেন না। এমনটা বলার একটা কারণ হতে পারে মেসেজের উত্তর না দেয়া। প্রথমত আমি এখনও ছাত্র। পড়ালেখার পাশাপাশি একটা বড় সময় এসব “ব্লগিং”-এ ব্যয় করি, যার আউটকাম তুলনামূলকভাবে নেই বললেই চলে। পাশাপাশি ছোটখাটো ফ্রিল্যান্সিং-ও নিজের প্রয়োজনে করতে হয়। হ্যাকার দাবি করেছেন, ব্লগারদের সবসময় হেল্পফুল থাকতে হয়। আমি কতঘণ্টা ব্লগিং করি সেই প্রশ্নও করেছেন।

তার প্রতি আমার প্রশ্ন থাকবে, অ্যান্ড্রয়েড কথনে গত তিন মাস আমি যে পরিশ্রম করেছি, তা কি অন্যদের সুবিধার্থে না? অ্যান্ড্রয়েড কথন থেকে কতজন কীভাবে সাহায্য পেয়েছেন আমি জানিনা। কিন্তু আমি যতক্ষণই লিখছি, সেটা কিন্তু মানুষকে সাহায্যের উদ্দেশ্যেই। এমনকি আমি যখন নতুন কোনো অ্যান্ড্রয়েড সেট বা আপডেটের কথা লিখছি, তখনও কিন্তু আমি পাঠককে জানানোর উদ্দেশ্যেই লিখছি। এছাড়াও আপনি দেখবেন সাইটের ৯০% মন্তব্যেই কিন্তু আমি জবাব দিই। পাঠকদের সময় নিয়ে মন্তব্য করার জবাব না দেয়াকে আমি ব্লগার হিসেবে পাঠককে অসম্মান করা বলে মনে করি। এ কারণে আমার পারসোনাল ব্লগেও আমি মন্তব্যের উত্তর দিই। এরপরও আমার ভাব নেয়া কোথায় হলো ঠিক বুঝলাম না।

হ্যাকারের প্রতি আমার দ্বিতীয় কথাটি হলো, আপনার নিজেকে বাঙালি বা বাংলাদেশি হিসেবে পরিচয় দিতে লজ্জা হওয়া উচিৎ। অ্যান্ড্রয়েড কথন যেভাবেই হোক এখন একটি পাবলিক সাইট হয়ে গেছে। অর্থাৎ, ব্যক্তিগত উদ্যোগে চালু হলেও এখন অনেক মানুষ এটি পড়েন। এটি নিঃসন্দেহে বাংলা ব্লগোস্ফিয়ারে একটি ভালো সংযোজন। এমনিতেই বাংলাদেশে মানসম্পন্ন লেখার বাংলা সাইটের অভাব রয়েছে। হাতেগোণা কিছু সাইট যখন অনলাইনে নিজের বৃহত্তর স্বার্থের (আয়) কথা চিন্তা না করে মানসম্পন্ন ভালো বাংলা কন্টেন্ট তৈরি করার জন্য কাজ করে যায়, তখন আপনারা কিছু হ্যাকাররা নিজেদের স্কিল প্রদর্শন করেন সাইটগুলো আক্রমণ করে। এই আক্রমণটা একজন বিদেশি হ্যাকারের কাছ থেকে আসলে অবাক হতাম না। (অবশ্য এই লেখা পড়ার পর আপনি আবার বিদেশি সেজে হ্যাক করার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেয়ার নয়।)

বাংলাদেশি হয়ে বাংলা সাইট হ্যাক যারা করেছেন তাদের উদ্দেশ্য করে প্রযুক্তি ব্যক্তিত্ব জাকারিয়া স্বপন-এর এই লেখাগুলো উদ্ধৃতি দিচ্ছি, যিনি প্রিয় টেকের সম্পাদক (যেখানে আমিও লেখালেখি করে থাকি):

যারা ইন্টারনেট সম্পর্কে জ্ঞান রাখেন, তারা জানেন বাংলায় ওয়েব সাইট চালানোটা ব্যবসায়ীকভাবে সফল নয়। কারণ, এখানে গুগলের অ্যাডসেন্স থাকে না। পাশাপাশি, বাংলা ওয়েব সাইটগুলোতে স্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলো বিজ্ঞাপন দেয় না। আবার কেউ কেউ দিলেও, তার রেট এতো কম – যা শুনলে আপনাদের হাসি পেতে পারে। আমরা নিশ্চিত, হাতে গোনা দু’তিনটি বাংলা ওয়েব সাইট ছাড়া, সবাইকে নিজের পকেট থেকে পয়সা দিয়ে সাইট চালাতে হয়। এই যখন আমাদের অবস্থা, সেখানে বাংলা কনটেন্ট বাড়বে কিভাবে? বাংলার প্রতি ভালোবাসার কারণে, এই সাইটগুলো নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী তবুও সাইটগুলো চালিয়ে রাখছেন। আমরা দিব্যি দিয়ে বলতে পারি, যে পরিশ্রম করে বাংলা সাইট করা হয় – সেই একই পরিশ্রম যদি ইংরেজি সাইটের জন্য দেয়া হতো – তাহলে এই সাইটগুলো অনেক বেশি উপার্জন করতো। কিন্তু টেকটিউন্স, প্রিয় টেক, টেক টুইটস ইত্যাদি সাইটগুলো সেই কাজটি করছে না। তারা বাংলায় কনটেন্ট দিচ্ছে। তাই আমাদের সবার উচিৎ হবে, এই প্রচেষ্টাগুলোকে বাঁচিয়ে রাখা।

বাংলায় যারা কনটেন্ট লিখেন, তারা জানেন এই কাজটি কতটা কঠিন। আমাদের দেশে সমালোচকের অভাব নেই, লেখকের অভাব আছে। আমাদের লেখকের চেয়ে সমালোচক বেশি। কারণ, লেখালেখির মতো কঠিন কাজটি আমরা কেউ করতে চাইনা। আবার, আমরা কেউ কেউ লিখতে পারলেও টাকার পরিমাণ কম বলে, লেখার চেয়ে প্রোগ্রাম লেখার দিকে বেশি জোর দেই। কোনটাই দোষের নয়। যার যা ভালো লাগবে, সে তাই করবে। কিন্তু সবার যে বিষয়টি ভুলে গেলে চলবে না, তাহলো – এই লেখালেখির কাজটি আমরা যতটা সহজ মনে করি – ততটা সহজ নয়। আর যখন প্রতিদিন লিখতে হয় – তখন সেটা আরো কঠিন।

বাংলায় যেহেতু এমনিতেই প্রযুক্তি লেখক পাওয়া যায় না, সেখানে বাংলা সাইটের উপর এই ধরনের হ্যাকিং – পুরো বাংলা কনটেন্টের জন্য হুমকি স্বরূপ। এবং আমরা সবাই মিলে যদি এটাকে প্রতিহত না করি, তাহলে একদিন আমরা সবাই দূরে দাঁড়িয়ে থেকে দেখবো – আমাদের বাংলা ভাষায় তেমন কোনও ওয়েব সাইট নেই। আমরা নিশ্চিত করে বলতে পারি, এই পৃথিবীর অষ্টম বৃহত্তম ভাষা হিসেবে আমাদের যত ওয়েব সাইট থাকা দরকার ছিল, সেটা থেকে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। ভারতে আঞ্চলিক ভাষায় যত হাজার হাজার ওয়েব সাইট আছে, আমাদের পূনার্ঙ্গ দেশ হওয়ার পরও তত ভালো ওয়েব সাইট নেই। কেন নেই – কারণ নিশ্চয় আছে। আমরা নিজেরা নিজেদেরকে ধ্বংস করতে ওস্তাদ। বাঙালী দোজখে দারোয়ান লাগে না – সেই কৌতুকটি কতটা বাস্তবসম্মত সেটা আমরা জানি। কিন্তু আর কত! আর কতকাল আমরা নিজেরা নিজেদের পা’য়ে কুড়াল মারবো? আর কতটা কাল!

লেখাগুলো প্রিয় টেকে টেকটিউনস হ্যাকের পর সম্পাদকীয় আকারে প্রকাশিত হয়েছিল।

এই লেখাগুলো পড়ার পর আর বুঝতে বাকি থাকার কথা না আমি কী বলতে চাচ্ছি। আশা করছি বাংলা সাইট রক্ষার গুরুত্ব অ্যান্ড্রয়েড কথনের হ্যাকারসহ অন্যান্য হ্যাকাররাও বুঝবেন। যখন ভারতীয়রা দেশি সাইট হ্যাক করেছিল, তখন কিন্তু আমরা বাংলা সাইটগুলোই দেশি হ্যাকারদের হ্যাকিং-এ উৎসাহ দিয়েছি। হ্যাকারদের আমরা খারাপ বলছি না। কথা হচ্ছে, স্কিলটা খারাপ স্বার্থে কাজে লাগানোর তো প্রয়োজন দেখছি না। বরং আপনাদের উচিৎ বাংলা সাইটগুলোর সিকিউরিটি আরও শক্তিশালী করতে ওয়েবমাস্টারদের সাহায্য করা। আপনারা করছেন উল্টোটা।

আর কারো যদি আমাকে নিয়ে কোনো ক্ষোভ থাকে, আমাকে মেইল করুন। আমি নিশ্চিত আপনাকে বোঝাতে সমর্থ হবো যে আমি কোনোরকম ভাব নিচ্ছিলাম না, বরং পুরোটায় হয় ভুল বোঝাবুঝি অথবা আমার চোখ এড়িয়ে যাওয়া।

পাঠক সমীপে

অ্যান্ড্রয়েড কথন ফিরে আসার আগ পর্যন্ত আপনারা অ্যান্ড্রয়েড সংক্রান্ত খবর ও অ্যান্ড্রয়েড কথনের আপডেট আমাদের অন্তর্বর্তীকালীন আপডেট পাতায় পড়তে পারবেন।

আপডেট ২

ফিরে পাওয়া গেছে অ্যান্ড্রয়েড কথনের সব ডেটা – অন্তর্বর্তীকালীন অ্যান্ড্রয়েড কথন আপডেট

81 responses

  1. এন্ড্রয়েডকথন আমার অনেক প্রিয় একটা ব্লগ। নিঃস্বার্থ এই ব্লগটি তৈরি করে তুমি (তোমার দ্বিগুন বয়সী হওয়াতে তোমাকে ‘তুমি’ বলছি) কতজনকে যে উপকৃত করেছ, সেটার হিসেব হয়তো দেয়া যাবে না। চমৎকার, তথ্যবহুল আর উপকারী এই ব্লগটির হ্যাক হবার মত ঘৃণ্য কাজের প্রতি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

    • ধন্যবাদ আপনাকে সঙ্গে থাকার জন্য। কারো আমার সঙ্গে ব্যক্তিগত বিরোধ থাকলে আমার সঙ্গে ব্যক্তিগতভাবেই কথা বলে সেই ঝাঁজ মেটাতে পারেন। অ্যান্ড্রয়েড কথন হ্যাক করে আরও শত শত পাঠককে ঝামেলায় ফেলাটা বুদ্ধিমানের কাজ মনে করি না আসলেই।

  2. android kothon hack kora apnak kosto dane amadero kosto diyeche.bhai kichu manus ache jara manus namaer kolonko.akta manus apnak hinsha kora,apnar koti korabe.tai boli apni kharap hoye janni.apnak amar valo kora jani.apni egiye jan.amra sobai apnar shate achi.

  3. এই সব ছাগলা হ্যাকারদের ধইরা মাইর দেয়া উচিত। দুইদিনের স্কিল ফলাইতে আসে।

    যাই হোক তুমি সতর্ক থেকো। মনে রাখবে বাংগালীর শত্রু আর কেউ নয় বাংগালী নিজেই। তাই সাইটের ব্যাকআপ রাখা ছাড়াও নিরাপত্তা বৃদ্ধি করো।
    শুভ কামনা রইল। 🙂

    • কথাটা খুব সত্য। আমাদের শত্রু আমরা নিজেরাই। ধন্যবাদ আপনাকে। দেখি কী করা যায়।

  4. Hasan Jubair (@hasanjubair) এর সাথে আমিও একমত । ভাল কাজের লোকের অভাব এই দেশটিতে তারপর আকামের (দুষ্টলোকের ) অভাব নাই । তারপর আমি জানি তুমি পারবেই পারবে । শুভকামনা রইল ।

  5. আমার খুবি খারপ লাগছে। আমার সবচেয়ে প্রিয় সাইটটি হ্যাক হয়ে গেল। আমি যদি একজন হ্যাকার হতাম তাহলে যাভাবে হোক এই সাইট উদ্ধার করতাম।

  6. অ্যান্ড্রয়েড কথন আমার অনেক প্রিয় একটি ওয়েব সাইট । যদিও আমার কোন অ্যান্ড্রয়েড ফোন নেই । তারপরেও অ্যান্ড্রয়েড কথনের একজন নিয়মিত পাঠক । আজ আমি অ্যান্ড্রয়েড কথন হ্যাক হ হওয়ার খবর শুনে স্তম্ভিত ।আর এই ব্লগটির হ্যাকারদের ঘৃণ্য কাজের প্রতি তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি । আশা করি আপনি দ্রুতই এই আঘাত সামলে উঠবেন ।

  7. এই সব শুধু ছোটলোকি,,, মানুস এর ভালটা আমরা সইতে পারি না কেনো ???,,,ছি ছি ছি ДИDЯФID ҜФΓHФИ
    আমাদের প্রানের সাইট,,,,

    ѕнαмє ѕнαмє ραяℓє ναℓσ кσяσ вαѕн ηα ∂ια…

  8. dekhe khubi kharap lagche j eto sundor site ta ei koreche .eta khubi kharap kaj j koreche se grinar jggo . amra sorboda apnader pase achi .tobe ekta kotha bhul bolchen ta holo hacker ra kharap . koyekjon er jonno to puro system k dosh deya jay na . protita hacker group er ekta niti thake ta holo bektigoto khob choritartha korar jonno kokhonoi hack kora jabe na . tobe sobai to ek noy . . apnara bolben j egulo ami keno bolchi/ kotha theke jani ??? ei prosner uttor ta ami nai ba dilam

    • আপনি পড়তে ভুল করেছেন। শেষের প্যারাগ্রাফটা আবার দিচ্ছি দেখুনঃ

      এই লেখাগুলো পড়ার পর আর বুঝতে বাকি থাকার কথা না আমি কী বলতে চাচ্ছি। আশা করছি বাংলা সাইট রক্ষার গুরুত্ব অ্যান্ড্রয়েড কথনের হ্যাকারসহ অন্যান্য হ্যাকাররাও বুঝবেন। যখন ভারতীয়রা দেশি সাইট হ্যাক করেছিল, তখন কিন্তু আমরা বাংলা সাইটগুলোই দেশি হ্যাকারদের হ্যাকিং-এ উৎসাহ দিয়েছি। হ্যাকারদের আমরা খারাপ বলছি না। কথা হচ্ছে, স্কিলটা খারাপ স্বার্থে কাজে লাগানোর তো প্রয়োজন দেখছি না। বরং আপনাদের উচিৎ বাংলা সাইটগুলোর সিকিউরিটি আরও শক্তিশালী করতে ওয়েবমাস্টারদের সাহায্য করা। আপনারা করছেন উল্টোটা।

  9. কাজটা যেই করুক না কেন, অবশ্যই সেটা ন্যাক্কারজনক হয়েছে। তবে আপনার এই সাইটের নিরাপত্তার ব্যাপারে ভবিষ্যতে আরো বেশি সতর্ক হতে হবে।

  10. vai eita khubi dhukhojonok. ami 1 month age w10 kine prothom android er shate porichito. hoi. techtunes er madhome apnar site er link pai. ami apnar site theke onek help paici. er por theke protidin 1bar holeo apnar site e dhuki new kono post asce kina dekhar jonno. aj 9 tar por try kore r thukte parcilam na, mone korecilam apni hoytoba site update kortecen kintu vhabte parinai je ak jon bangladeshi. androidkothon ke hack korbe. vai apnar kono poste ami apnake vhab nite. dekhi nai. apni site ta off kore diyen na. amra apnar shathe aci.

  11. একটা উপকারি সাইট হ্যাক করার কি মানে তা বুঝলাম না। তার উপর এটা করে না হ্যাকারের নিজের কোন লাভ হল, না অন্য কারো।

  12. shudhu ekta dirgho shas elo vitor theke. sottie kosto pelam. khub baje kaj korese oddrisso soytan ta. vitu lok gulo e arale theke onner khoti kore moja pay. tobe android kothon er fan der dirgho shas tar jibone provab felbe, amar android phone or device nei, but ami regular porar chesta kori er post gulo. khub e valo lage. Sajib vai k valo lage. i mean tar likha gulo. amar bari Mazar road ei, 1st colony. sajib vai k personally chinina. tobe ei site a vab nilen kokhon bujhlam na. asole hacker er faul ekta kotha eta. jai hok, sajib vai er kase amar joralo dabi androidkothon amra fire pete chai. We love http://www.androidkothon.com

    • আমিও জানি না উনি কি মজা পেলেন বা তার কী লাভ হলো।

      যাই হোক, আশেপাশেই আছেন যখন একদিন মেসেজ দিয়ে চলে আসবেন।

      • আমার চোখে আপনি Star……. আমন্ত্রন পেয়ে কেমন লাগছে বুঝাতে পারবনা সজিব ভাই। যাই হোক, androidkothon এর পূণজ়াগরন এর অপেক্ষায় আছি ………………….

        • হা হা ভাইয়া এটা একটু বেশিই বলা হয়ে গেছে। স্টার-টার কিছু না। চলে আসবেন একদিন। কথা হবে। তার আগ পর্যন্ত আমি দেখি সাইটের নিরাপত্তায় কতদূর কী করা যায়।

  13. Its really a odd example of jealousy. I don’t find the points mentioned by the hacker justifies the hacking of this site. No doubt, he has a good skill in computing but he is not using it for welfare. I would like to say the old sayings for him ,”…with great power comes great responsibility.” Unfortunately this is very less likely to be felt in our country.

  14. এখন কম্পিউটারে বসে দেখলাম!!!!
    খুবই দুঃখজনক ঘটনা।যে কারণ দেখিয়েছে তা সম্পূর্ণ অপ্রাসঙ্গিক।

  15. অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস কেনার পর গত দুইমাস ধরে সাইটটাতে প্রতিদিন অন্তত একবার হলেও ঢুঁ মারি। আজ সন্ধ্যায় যখন ভিজিট করার চেষ্টা করছিলাম, তখনই আশংকা হয়েছিল সাইটটা সম্ভবত হ্যাক হয়েছে। কিন্তু হ্যাকারদের কোনো ম্যাসেজ না থাকায় নিশ্চিত হতে পারছিলাম না। পরে গুগল সার্চ দিয়েও এ ধরনের কিছু পেলাম না। ফেসবুক গ্রুপ কিংবা পেজেও কিছু পেলাম না। তখন ভাবলাম হয়তো সার্ভার ডাউন হয়ে গেছে কোনো কারণে।

    এইমাত্র ফেসবুক গ্রুপে ঢুকে জানতে পারলাম এই খারাপ খবর। হ্যাকারদের ব্যাপারে অনেকে বলেছেন, আমার আর নতুন করে কিছু বলার নেই।

    আপনার/তোমার প্রতি একটা পরামর্শ/মতামত- সাইটটা রিকভার করতে বাংলাদেশ সাইবার আর্মি কিংবা ব্লাক হ্যাট হ্যাকার্স – এদের কোনো সহায়তা নেয়া কি সম্ভব?

    আশা করছি খুব অল্প সময়েই অ্যান্ড্রয়েড কথন ফিরে আসবে আগের সব কিছু নিয়ে। শুভ কামনা।

    • ধন্যবাদ আপনাকে। সাইবার আর্মি বা ব্ল্যাক হ্যাট হ্যাকার্সদের যে কেউ সাইটের সিকিউরিটি সংক্রান্ত বিষয়ে পরামর্শ দিলে আমি বেশ উপকৃত হবো।

  16. ভাই আপনার এই সাইটে ঘুরে ঘুরে আমি আমার স্যাম্ফোনি মোবাইল কিনেছি। আজ কি মনে করে ঢুকলাম, দেখি সাইট নাই। আমার খুব কষ্ট লেগেছে। একজন মানুষ কত ছোট মনের হলে এ রকম জঘন্য একটা কাজ করতে পারে। আমি আশাকরি খুব তারাতারি আমাদের প্রিয় সাইট আমাদের মাঝে ফিরে আসবে।

  17. সাইটটা আমার অনেক প্রিয়। নিয়মিত ভিজিট করতাম। হ্যাকারদের প্রতি একরাশ ঘৃণা রইল।

  18. যেহেতু সাইটটি কমার্শিয়াল নয় তাই আয় ইনকামের ক্ষতি হয়নি — এটা হল মন্দের ভাল। আর এবার সাইটের সিকিউরিটি নিয়ে আরও বেশি ক্রিটিক্যালি মাথা ঘামাবে — ভবিষ্যতে তোমার কমার্শিয়ালি বা প্রফেশনালী করা সাইটে এরকম ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা কমে যাবে — এটাও দীর্ঘমেয়াদে ভাল একটা দিক। খারাপ দিক হল, এসব দেখতে গিয়ে লেখালেখির সময়ে ভাগ বসবে।

    যা হোক সবসময় খারাপ ঘটনাগুলো থেকে ভাল অংশটুকু বের করে নিজের উপকারে কাজে লাগানোর চেষ্টা করা উচিত। যদি সাইটের ব্যাকআপ থেকে থাকে, তাহলে ব্রাইট সাইডগুলো দেখে মন খারাপ করা বাদ দিলাম।

    এবার — — ঐ তুই বেশি ভাব লস্ ক্যা … … এই ধরণের ডায়লগ শুধুমাত্র রাস্তার পাতি মাস্তানরা আর সিনেমার পাতি মাস্তানরা দেয় বলে জানতাম। এবার পাতি হ্যাকারও যে এরকম অযুহাত দেয় সেটা জানতে পারলাম।

    — যতই বলুক, বাঘমামা, আমি তো তোমার ভাটিতে পানি খাচ্ছি – তোমার পানি ঘোলা করবো কিভাবে? — — লাভ নাই; বাঘের পাইছে ক্ষুধা, ও মেষ শাবককে মারবেই … … লোক দেখানো ভদ্রতা (!) করে যে একটা অযুহাত/কারণ দেখিয়েছে সেটাই বেশি !

    মোরাল হচ্ছে ক্ষতিকারক জীবন-নাশকের অযুহাতের জবাব দেয়া মূল্যহীন — তাই হ্যাকারের উদ্দেশ্যে এ্যাত ভদ্র জবাব দেয়ার প্রয়োজন ছিল না বলে মনে হয়।

    অ্যানড্রয়েড কথন আমার একটি প্রিয় সাইট — এটা তাড়াতাড়ি ফিরে আসুক, নিরাপদ ও গতিশীল থাকুক।

    • শামীম ভাই, আপনাকে ধন্যবাদ মূল্যবান মতামতের জন্য। আসলেই সত্যি কথা বলেছেন। সাইটের ব্যাকআপ আছে কিন্তু কোনো একটা কারণে ব্যাকআপ ঠিকমতো কাজ করছে না। এ জন্য প্রথমে বেশি চিন্তিত না হলেও এখন আমি যথেষ্টই চিন্তিত। আর আমি সহজেই কাউকে আক্রমণাত্মক কথা বলে বসতে পারি না। আর খামোকা শত্রু তৈরি করতেও চাই না যে সারাক্ষণ আমার সাইট হ্যাক করার সুযোগ খুঁজতে থাকবে। তাই আমি ভদ্রভাবেই জবাব দিয়েছি।

    • ডেটাবেসের পোস্ট টেবিল মুছে দিয়েছে। ব্যাকআপ ছিল কিন্তু আমি আকাশ থেকে পড়ছি যে ব্যাকআপ কাজ করছে না।

  19. Really Shocking!!! Its not a sign of pedantry, rather the person who has hacked the site proved himself as the greatest idiot of 2012. Why can’t we see our own progress???
    Don’t worry Brother “every dog has its day”. He’ll get his punishment.

  20. ভাই, আপনার সাইটটা খুলে হ্যাক হবার কথা জানতে পারলাম। মন খারাপ হয়ে গেলো। আমি প্রতিদিনই এন্ড্রয়েড কথন একবার হলেও খুলি। অনেক অজানা তথ্য জানার জন্য। আপনি মন খারাপ করবেন না। কারন এত সুন্দর একটা সাইট তৈরী করে আপনি অসংখ্য ভিজিটর/সদস্য/শুভাকাংখি পেয়েছেন। দু/একজন বাজে লোক কি বললো তাতে কিছু আসে যায় না। ভালো থাকবেন। ধন্যবাদ।

  21. সজীব ভাইয়া,
    এন্ড্রোয়েড কথনের আমি একজন নীরব ভক্ত। কেনো যে এইসব *********হ্যাকাররা আমাদের দেশীয় সাইটগুলো হ্যাক করে, জানি না। কোন সাইটের নিরাপত্তায় অসম্পূর্ণতা থাকতেই পারে। উচিৎ কাজ হচ্ছে, এ্যাডমিনকে জানানো। সাহায্য করা। অথচ এরা……। কয়েকদিন আগে আমার এক লোকাল ক্লায়েন্টের সাইটের কাজ শেষ করে, রাতেই রিলিজ দিলাম। খুব ক্লান্ত লাগছিলো। ভাবলাম, সকালে সিকিউরিটির গেটওয়েগুলো ঠিকঠাক করবো। সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখি, সাইট হ্যাকড! খুব কষ্ট লেগেছিলো। আপনার জন্য সমবেদনা রইলো ভাইয়া..। আশা করি, শীঘ্রই ফিরবে এন্ড্রোয়েড কথন। শুভ কামনা রেখে যাচ্ছি।

    • ধন্যবাদ আপনাকে। এই তথাকথিত হ্যাকারদের উচিৎ দেশি সাইটের নিরাপত্তাগুলো স্ট্রং করা। কিন্তু তারা না করে গর্হিত সব কাজ করে যাচ্ছে।

  22. সন্ধায় যখন এন্ড্রোয়েড কথনে অ্যাডফ্লাই এর অ্যাড দেখেছিলাম তখনই কেন যেন মনে হয়েছিল সাইটটা হ্যাক হয়েছে। ৫ সেকেন্ড পরে যখন অন্য সাইট লোড হল তখনই বুঝেছি যা ভেবেছিলাম ঠিক তাই ঘটেছে। ভাই যত তারাতারি পারেন সব ঠিক করেন। আমরা আছি আপনার সাথে।

  23. কিছুদিন আগে বাংলা প্লাটফর্মে এণ্ড্রয়েড কথন নামের একটি সাইটের সুন্দর অগ্রযাত্রা দেখে ভালো লেগেছিলো…..আরো ভালো লাগলো যখন দেখলাম এটি কোনো বাংলাদেশি সাইট…..কিন্তু আজকে ব্রাউজ করতে গিয়ে দেখলাম…..!!!হ্যাকড!!!….কি আজব…..কমেণ্ট পড়ে দেখলাম…..তাও আবার বাংলাদেশি…..বাঙালি যে নিজের ভালোটাও বুঝতে জানেনা….আরে পারলে বাইরের কোনো সাইট হ্যাক করে দেখাও না…..তোমার কত বাহাদুরি (হ্যাকার-কে)। …..আরে তুমি যে বাংলাদেশি কোনো সাইট হ্যাক করেছো সেটা কোনো গর্বের বিষয় না। সেটা তোমার জন্য লজ্জার বিষয়……বাংলাদেশে হাতেগোনা মাত্র কয়েকটি বাংলা সাইট আছে। সেখানেও যদি তুমি নিজের পায়ে নিজে কুড়াল মারতে আসো……..তাহলে তুমি দেশপ্রেমিক নও তুমি দেশদ্রোহী।

  24. ফিরে আসুন তাড়াতাড়ি…..শুভকামনা রইল………………..এটা উদ্ধারে সাহায্য করতে পাললে ভাল লাগতো, কিন্তু আমি ওয়ার্ডপ্রেসের রিকভারিতে অভ্যস্ত নই। best of luck.

  25. সজীব ভাই সব খানেই ভাল এবং খারাপ থাকে… তাদের কথা বাদ দিয়ে নিজের মত আবার শুরু করেন ।
    বাংলায় ব্লগিং করা যে কি পরিমান কস্ট সাধ্য তা তারাই জানে… উপদেশ দেয়ার লোকের অভাব নেই তবে তাকে বাস্তব করে দেখানোর অনেক অভাব… এই কারনেই কেবল বাংলা ব্লগিং ছেড়ে দিয়েছি প্রায় ১ বছর আগে… আপনি লিখবেন কিন্তু তাও মানুশের …আর সেই মানুশ ই আপনাকে তুচ্ছ করে দেখবে…
    তবুও আশা করছি দ্রুত রিকভার করতে পারবেন 🙂

    • আপনার কথা সত্যি। আমি এ যাবৎ অনেক অনেক বাংলা ব্লগার দেখেছি যারা খুব ভালো ব্লগিং করতে পারেন। তাদের একটা অংশ সামুতে ব্লগিং করতেন। কিন্তু পরিবেশের কারণে আর এভারেজ বাঙালির এই অদ্ভূত চরিত্রের কারণে তারা অনেকেই নিজেরা ব্লগিং জগত ছেড়েছেন তো বটেই, লেখাগুলোও মুছে দিয়েছেন। ফলে ব্লগোস্ফিয়ার হারিয়েছে অসংখ্য প্রতিভাবান লেখক।

      আমি এইসব জেনেও কেন আবার বাংলায় কমিউনিটি সাইট বানাতে গিয়েছিলাম জানি না। দেখা যাক, কতদিন ধৈর্য্য ধরে রাখতে পারি। ধন্যবাদ আপনাকে।

  26. সাইটটা আমার অনেক প্রিয়। নিয়মিত ভিজিট করতাম। হ্যাকারদের প্রতি একরাশ ঘৃণা রইল।

  27. প্রিয় সজীব
    সিকিউরিটি নিয়ে যদি খুব বেশী সময় না দিতে চান তবে বলবো- একটি ব্যাকআপ স্ক্রিপ্ট ক্রন শিডিউলে রান করে রাখুন আপনার ওয়েব সার্ভারে। এটি বেশ সহজ একটি পদ্ধতি। সি-প্যানেল দিয়ে করতে পারবেন। স্ক্রিপ্ট লাগলে আমি আপনাকে দিতে পারি। আমার নিজস্ব ভাড়া করা সার্ভারে আমি বেশ কিছুদিন এটি চালিয়েছি। একটি স্ক্রিপ্টের কাজ ছিল ওয়েব সাইটের স্ট্যাটিক ফাইল গুলো ব্যাকআপ নেয়া- আর আরেকটির কাজ ছিল ডেটাবেজের ব্যাকআপ নেয়া। ব্যাকআপ নেয়া শেষ হলে সরাসরি আমার জিমেইলে জিপ করে মেইল করত স্বয়ংক্রিয়ভাবে স্ক্রিপ্টটি। জিমেইলে একটি ফিল্টার কনফিগার করা ছিল। এটি আমার ব্যাকআপগুলিকে একটি আলাদা ফোল্ডারে মুভ করত। ক্রন শিডিউলটি প্রতিদিন কমপক্ষে ১ বার রান করতো। ফলে আমার ১/২ দিনের ব্যাক আপ যদি কাজ নাও করে তবে আগেরটিতে ফিরে যাওয়ার সুযোগ ছিল। এতে হয়তো ১/২ দিনের এন্ট্রি বাদ পড়ত যেটা খুব সহজেই রিকভার করা সম্ভব।

    আপনিও এরকমভাবে সার্ভারকে কনফিগার করে নিতে পারেন। হেল্প লাগলে ইনশাআল্লাহ করা যাবে।
    ভাল থাকুন। সেই প্রত্যাশায়।
    জাহিদ
    iusumon at gmail dot com

    • সুমন ভাইয়া,

      ধন্যবাদ আপনার মন্তব্যের জন্য। Online Backup for WordPress নামে একটা প্লাগইন ব্যবহার করি আমি যেটা দিনে চারবার এই কাজটা করতে পারে। পুরো ডেটাবেস ও ফাইল সিস্টেম ব্যাকআপ নিতে সক্ষম এই প্লাগইনটি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে তাদের প্লাগইনে কিছু সমস্যা দেখা দিয়েছে যার কারণে আমার ব্যাকআপ ফাইলটা ঝামেলা করছিল। আমি তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করায় তারা ফাইলটা চাইলো। আমি ফাইল দেয়ার পর তারা সেটি ঠিক করে দিয়েছে ও প্লাগইন আপডেট করবে জানিয়েছে।

      এরা এদের সার্ভারে ফ্রিতে ১০০ মেগাবাইট পর্যন্ত জায়গা দেয়। আপনি যেই পদ্ধতি বললেন, সেই পদ্ধতিতে জিমেইলে তো আমি বড় আকারের ফাইল আনতে পারবো না। কেননা, জিমেইলে সর্বোচ্চ অ্যালাউড ফাইল সাইজ হচ্ছে ২০ মেগাবাইট। আর ফ্রি-তে আমার কাছে এই প্লাগইনটাই বেস্ট মনে হয়েছে।

      আপনার উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম।

      • ডেটাবেজ সাইজ কমপ্রেস করার পর যতদিন ২০ মেগার মধ্যে রাখতে পারবেন ততদিন এটা করতে পারেন। আরেকটি উপায় আছে- আপনার সাইটে এফটিপি কনফিগার করে রাখুন। তারপর ঐ কমপ্রেস ফাইলগুলিকে আপনার নিজস্ব পিসিতে ক্রন শিডিউলার দিয়ে নামানোর জন্য কমান্ড দিয়ে রাখুন। মূল সার্ভার শুধু ব্যাকআপ ক্রিয়েট করবে আর আপনার পিসি সেটিকে লোকালি ডাউনলোড করে রেখে দেবে নির্দিষ্ট সময় পর পর।

        সব থেকে ভাল হয় প্লাগইনের উপর নির্ভর না করে নিজস্ব ব্যাকআপ সিস্টেম তৈরি করে নেয়ার। তাহলে পুরো বিষয়টি আপনার কন্ট্রোলে থাকবে এবং বিপদের সময় কাজে লাগবে।

        আর এ ব্যাকআপটিকে লোকালি রি-স্টোর করে টেস্ট করবেন মাঝে মাঝে।

        তবে ২০ মেগাবাইট একেবারে কম নয় ডেটাবেজের জন্য। আমার একটি ওয়েব এপ্লিকেশন যেটি একটি রিটেইল স্টোর ব্যবহার করে তার সাইজ ৩৯ মেগার মত-সেটি bzip ফরম্যাটে ব্যাকআপ নিলে মাত্র ১.৫ মেগাবাইটে নামিয়ে আনে। আর সাইজ বেশি হলে এফটিপি তো আছেই। তবে এক্ষেত্রে ম্যানুয়ালি আপনাকে নামিয়ে নিতে হবে ব্যাকআপটিকে।

        আরেকটি বিকল্প ও আমি চিন্তা করছি- ড্রপবক্স বা গুগল ড্রাইভে এই লিমিটেশন নেই। এখানে কিভাবে সরাসরি ফাইল পাঠানো যায় সার্ভার থেকে কোন প্লাগইনস বা ইন্টারফেসের মাধ্যমে সেটি নিয়ে কিছুটা চেষ্টা করা যায়। সামনে কিছু পেলে আমি আপনাকে ইনশাআল্লাহ জানাবো।

        ভাল থাকুন – সে প্রত্যাশায় শেষ করছি।

  28. Pingback: ফিরে পাওয়া গেছে অ্যান্ড্রয়েড কথনের সব ডেটা | অ্যান্ড্রয়েড কথন

  29. ভাই আগের সাইটটা পিসিতে খারাপ ছিলোনা। কিন্তু মোবাইল থেকে দেখতে অনেক আগোছালো মনে হতো। কারন একই পস্টের লিংক একাধিক জায়্গায় দেখা যেতো। আর আমি ওপেরা মিনি থেকে কমেন্ট করতে পারতাম না। যেহেতু এটা নতুন করে তৈরি করা হচ্ছে সেহেতু এই বিষয়্গুলির প্রতি দ্রিস্টি দেবেন আশা করি।

  30. we should not’to do such a thing like hakking a bangla bloging site rather we should appriciate how a bloger can run a non profitable site,coz at present we r in a shortage of creative person(withou money).moreover we r benificial from this site.

  31. আমি এই সাইটের নিয় মিত পাঠক।
    আমার চেয়ে হয়ত কেও ভাল করে জানে না যে সাইট হ্যাক হল কতটা কষ্ট লাগে 😦
    আপনারা জানেন কি না যানি না আমাদের সাইট http://tipsfair.net এই সাইটি অনেক জনপ্রিয় ছিল কিন্তু কিছু ইন্ডিয়ান যানোয়ারা আমাদের সাইটি হ্যাক করে।
    সেই দিন আমাদের পাঠক, মডেরেট,লেখক সবাইযে কিভাবে কেঁদেছ তা আমি ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না।:(

    • আপনি ঠিকই বলেছেন। অবিরাম পরিশ্রম করার পর যখন কোনো সাইট হ্যাক হয় তার কষ্ট সাইটের অ্যাডমিন বা ডেভেলপার ছাড়া অন্য কেউ জানেন না। বিশেষ করে লেখালেখির সাইটে যেখানে প্রতিটা লেখার পেছনেই রয়েছে প্রচুর শ্রম।

  32. Pingback: চারদিন পর ফিরে এসেছে অ্যান্ড্রয়েড কথন | অ্যান্ড্রয়েড কথন

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s